অগ্রবর্তী সময়ের ককপিট
বাংলাদেশ সর্বশেষ

ঘন কুয়াশার কারণে তিনটি নৌরুটে ফেরি চলাচল বন্ধ

পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া ও আরিচা-কাজিরহাট এবং ধাওয়াপাড়া-নাজিরগঞ্জ নৌ-রুটে ঘন কুয়াশার কারণে ফেরি চলাচল বন্ধ ঘোষণা করেছেন বিআইডব্লিউটিসি কর্তৃপক্ষ। ছোট-বড় যানবাহন নিয়ে মাঝ নদীতে আটকে পড়েছে ছোট-বড় পাঁচটি ফেরি। এতে তীব্র শীতে দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন এই নৌ-পথে চলাচলরত যাত্রী ও যানবাহনের শ্রমিকরা। আরিচা আঞ্চলিক কার্যালয়ের ডিজিএম শাহ মুহাম্মদ খালেদ নেওয়াজ বিষয়টি নিশ্চিত করছেন।

বিআইডব্লিউটিসি কর্তৃপক্ষ জানায, সন্ধ্যা রাত থেকেই পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া ও আরিচা- কাজিরহাট এবং ধাওয়াপাড়া-নাজিরগঞ্জ নৌরুটে কুয়াশা পড়তে শুরু করে। রাত ১০ টার পর থেকে কুয়াশার মাত্রা বাড়তে থাকে। রাত ১২ দিকে কুয়াশার মাত্রা তীব্র আকার ধারণ করলে চ্যানেলের বিকন বাতি ও মার্কিং পয়েন্টে কিছুই দেখা যাচ্ছিল না। এতে দুর্ঘটনা এড়াতে এ তিনটি নৌ-রুটে ফেরি চলাচল সম্পূর্ণ বন্ধ ঘোষণা করে বিআইডব্লিউটিসি কর্তৃপক্ষ। এতে উভয় ঘাট এলাকায় যানবাহন আটকে পড়তে শুরু করে।এতে তিনটি নৌ-রুটে প্রায় ৩শতাধিক যানবাহন আটকে রয়েছে। তীব্র শীত ও কুয়াশার মধ্যে মাঝ নদীতে নোঙ্গর করে আছে আরো পাঁচটি ফেরি । এতে দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন যানবাহনের শ্রমিক, যাত্রী ও ব্যবসায়ীরা।

আব্দুল আলিম জানান, রাত দুইটার সময় ঢাকা থেকে পাটুরিয়া ঘাটে এসেছি। এখনো তিন নম্বর ঘাটে অপেক্ষা করছি। কুয়াশার কারণে কুয়াশা করনে নদী পার হতে পারিনি। তীব্র শীতের মধ্যে ঘাট এলাকায় অপেক্ষা করছি।
হাসেম আলী জানান, রাত ১১ টার দিকে পাটুরিয়া ফেরিঘাটে এসেছি । আমার গাড়িতে আমি সহ অনেক শিশু রয়েছে।তীব্র শীতে তারা অনেক কষ্ট করছে। এখানে খাওয়া-দাওয়া সহ অনেক সমস্যা রয়েছে।

আব্দুল মজিদ জানান, রাত দুটার সময় ফেরিঘাটে এসেছি। ফ্যামিলিকে নিয়ে এসে এখানে খুব দুর্ভোগের আছি।আমরা বরিশালে যাবো। কুয়াশা ও তীব্র শীতে খুব কষ্ট করছি ঘাট এলাকায়।

বিআইডব্লিউটিসি’র আরিচা আঞ্চলিক কার্যালয়ের ডিজিএম শাহ মোহাম্মদ নেওয়াজ জানান, পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া ও আরিচা-কাজিরহাট এবং ধাওয়াপাড়া-নাজিরগঞ্জ এই তিনটি নৌরুটে ২৭ টি ফেরি চলাচল করে .। কুয়াশার মাত্রা কেটে গেলে ফেরি চলাচল স্বাভাবিক করা হবে বলে তিনি জানান।

সম্পর্কিত খবর

বঙ্গবন্ধু সামরিক জাদুঘর পরিদর্শন করলেন রাষ্ট্রপতি

gmtnews

আমেরিকায় শক্তিশালী ভূমিকম্প

gmtnews

মারিওপোলে রুশ হামলায় ইউরোপের বৃহত্তম স্টিল কারখানা ধ্বংস

gmtnews

মন্তব্য করুণ

এই ওয়েবসাইটটি আপনার অভিজ্ঞতা উন্নত করতে কুকি ব্যবহার করে। আমরা ধরে নিচ্ছি যে আপনি এটির সাথে ঠিক আছেন, তবে আপনি ইচ্ছা করলেই অপ্ট আউট করতে পারেন। স্বীকার করুন বিস্তারিত